স্ত্রীবাচক বহুবচন ইসম গঠন করার নিয়ম

তিনটি ধাপে একটি স্ত্রীবাচক একবচন ইসম (হেভি ফর্ম) থেকে স্ত্রীবাচক বহুবচন ইসম করতে গঠন পারি। নিচে প্রতি ধাপের বর্ণনা দেয়া হলো :

ধাপ-১:

স্ত্রীবাচক একবচন হেভি ফর্মের রফা, নাসব ও জার্ স্ট্যাটাসের ইসম থেকে যথাক্রমে ةً , ةٌ ও ةٍ সরিয়ে রাখবো।

ةً , ةٌ ও ةٍ বিহীন ফর্মস্ত্রীবাচক একবচন হেভি ফর্মস্টেটাস
مُسْلِمَمُسْلِمَةٌরফা
مُسْلِمَمُسْلِمَةًনাসব
مُسْلِمَمُسْلِمَةٍজার

ধাপ-২:

ةً , ةٌ ও ةٍ বিহীন ফর্মের সাথে উপযুক্ত মদের হরফ যুক্ত করবো।

মদের হরফ যুক্ত ফর্মউপযুক্ত মদের হরফةً , ةٌ ও ةٍ বিহীন ফর্মস্টেটাস
مُسْلِمَاامُسْلِمَরফা
مُسْلِمَاامُسْلِمَনাসব
مُسْلِمَاامُسْلِمَজার
আরবি ব্যাকরণে তিনটি মদের হরফ রয়েছে যথা ا و ي * যবরের বাম পাশে হলে খালি আলিফ প্রাধান্য পাবে।কারণ যবরের বাম পাশে খালি আলিফ হলে এক আলিফ টেনে পড়তে হয়।যেমন بَا * পেশের বাম পাশে হলে জযম ওয়ালা ওয়াও প্রাধান্য পাবে।কারণ পেশের বাম পাশে জযম ওয়ালা ওয়াও হলে এক আলিফ টেনে পড়তে হয়। যেমন بُوْ * অন্যদিকে যেরের বাম পাশে হলে জযমওয়ালা ইয়া প্রাধান্য পাবে।কারণ যেরের বাম পাশে জযমওয়ালা ইয়া হলে এক আলিফ টেনে পড়তে হয়। যেমন بِىْ

ধাপ-৩:

মদের হরফ যুক্ত ফর্মের সাথে রফা ফর্মের ক্ষেত্রে تٌ এবং নাসব ও জার্ ফর্মের ক্ষেত্রে تٍ যুক্ত করবো।

স্ত্রীবাচক বহুবচনমদের হরফ যুক্ত ফর্মস্টেটাস
مُسْلِمَاتٌتٌمُسْلِمَاরফা
مُسْلِمَاتٍتٍمُسْلِمَاনাসব
مُسْلِمَاتٍتٍمُسْلِمَاজার

নিচের টেবিলে একবচন স্ত্রীবাচক থেকে বহুবচন স্ত্রীবাচকের পুরো পরিবর্তনটি দেয়া হলো :

বহুবচন স্ত্রীবাচকএকবচন স্ত্রীবাচকস্টেটাস
مُسْلِمَاتٌمُسْلِمَةٌরফা
مُسْلِمَاتٍمُسْلِمَةًনাসব
مُسْلِمَاتٍمُسْلِمَةٍজার

2 comments

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!